আমার বন্ধু রুপক
আমার বন্ধু রুপক avatar

বেশ কয়েক মাস ধরেই বার্মা/মায়ানমারে মুসলমান হত্যার উৎসব শুরু হয়েছে। ঠিক কয়েক মাস বললে ভুল হবে, ১৯৬২ তে একটা মেসাকার হয়েছিল। যেখানে প্রায় ২৪ হাজার (মত পার্থক্য রয়েছে) মুসলমান হত্যা করা হয়েছিল। ইদানিং গত প্রায় ৬/৭ মাস জাবত আবার বার্মার উগ্র বৌদ্ধদের মেসাকার আগের সব রেকর্ড ছাড়িয়ে গেছে। সমস্ত পৃথিবী যখন মুসলমান হত্যার উৎসবের আয়োজন করেছে তখন বার্মা আর পিছিয়ে থাকবে কেন?

বার্মার এই মেসাকার আমি কোন ভাবেই সম্মিলিত মুসলীম হত্যার উৎসবের বাইরে চিন্তা করি না। প্রশ্ন করতে পারেন কেন এটা বিচ্ছিন্ন নয়? উত্তর এক লাইনে দিব; তা হল মিডিয়ার জন্ডিস রোগ হয়েছে তাই সমস্ত পৃথিবীর মত‘ই বার্মার মেসাকারও মিডিয়ার চোখে ধরে না

বিস্তারিত

আপনি কে?
আপনি কে? avatar

চমৎকার সব যুক্তি, কথা আর বিবরণে আপনি বলতেই পরেন এটা ঠিক নয় ওটা ঠিক নয়; মনে করতে পারেন এটা করা উচিত আর ওটা করা উচিত না। বা আপনার যুক্তি হয়তো হিমালয় পর্বতটিকেও তার নিজস্ব স্থান থেকে মালদ্বীপে নিয়ে স্থাপন করতে পারে।

কিন্তু ঠিক বেঠিকের মাপকাঠিটা একজন মুসলমানের জন্য প্রি-ডিফাইনড (পূর্বনির্ধারিত), পরিষ্কার। বেঁচে থাকার জন্য চাল, নুন, তেল চুরি করলে যেমন কোন শাস্তি হবে না, আবার পদ্মা সেতু/হলমার্ক মার্কা চুরি হলে হাত খানা কাটা যাবে। এটাই ইসলামের চুড়ান্ত বিধান। আর এই বিধান বিশ্বাস করার কারনেই কেউ মুসলামান আর অন্যজন কাফের হয়ে যায়। অর্থাৎ একজন আল্লাহর কাছে আত্মসমর্পণ করে আর অন্যজন অবিশ্বাসী।

বিস্তারিত

শুছাফাইলিন খানক্লির্প্লোটেক্স গালগাইলাইলিন
শুছাফাইলিন খানক্লির্প্লোটেক্স গালগাইলাইলিন avatar

অতঃপর আমাদের দেয়া হইয়াছে পর পর ৫টি মারাত্মক রোগ হইতে মুক্তি পাইবার টিকা। আমরা টিকা লইয়া মহানন্দে এ পাড়া ও পাড়া, গ্রাম, শহর, মাঠ, ঘাট ঘুরিয়াছি। আমরা নিশ্চিন্ত হইয়াছি আমাদিগের আর কোন দিন এহেন কঠিন ব্যাধি আক্রমন করিবে না। আমাদিগের পিতা/মাতারা সুখের রাত্রি পার করিয়াছেন; তাহাদের সন্তানের আর কোন দিন কঠিন রোগ ব্যাধি হইবে না।

বিজ্ঞরা গবেষণা চলমান রাখিয়াছেন, নতুন নতুন কঠিন রোগ হইতে মুক্তি পাইবার জন্য তাহারা নতুন নতুন টিকা আবিষ্কার করিতেছেন। আমরা ৫টি মারাত্মক রোগের টিকা লইয়াছি, কিন্তু আমাদিগের সন্তানদের তাহার চাইতে বেশী মারাত্মক রোগের টিকা লইতে হইবে।

বিস্তারিত

Agent
Agent avatar

Agent কি?

ডিকশনারি রেফারেন্স ডট কম Agent এর শাব্দিক অর্থ দেখিয়েছে পাচ ধরনের।

১. একজন ব্যাক্তি বা প্রতিষ্ঠান যা অনুমোদন সাপেক্ষে অন্যের জন্য কাজ করে, যেমন: ইউনি লিভারের Agent  বা ভারতের হিরো হোন্ডার Agent ইত্যাদি।
২. একজন ব্যাক্তি বা বস্তু ক্ষমতা দেখায় বা আছে; যা তার নিজের নয়।
৩. একটি প্রাকৃতিক শক্তি বা বস্তু যা নির্দিষ্ট একটি লক্ষ্যের জন্য কাজ করে।
৪. একটি সক্রিয় কারন; ফলপ্রসু উদ্দেশ্য।
৫. একজন ব্যাক্তি যে একটি প্রতিষ্ঠানের কাজ করে।

আপনি যদি Berger Bangladesh Limited এর এ্যজেন্ট হোন তাহেল আপনাকে সারা দিন রাত Berger এর কীর্তন গাইতে হবে। ভুলেও পেইলাক, রোমানার কথা বলতে পারবেন না।

বিস্তারিত

আজব দেশের আজব মানুষ
আজব দেশের আজব মানুষ avatar

আজব দেশের আজব মানুষ, আজব তাদের ব্যবহার,
“শিবির ধর, জবাই কর!” গলায় তাদের চিৎকার।
পুলিশ, র‍্যাব আর বিজিবি ঘেরা তাদের মজার আন্দোলন,
বিরিয়ানী আর সরকারী টয়লেটে কাটছে ভালই দিন-ক্ষণ।

মুখে তারা মুসলিম সবাই, অন্তরে যে দেশপ্রেমিক,
“দেশপ্রেম যে ঈমানের অঙ্গ”-বলতে চায় তারা এটা ঠিক।
নবী আমার পরের ব্যাপার, আগে মোরা ফাঁসি চাই,
ইসলাম হল বাসার লুঙ্গি, সভ্য জগতে জায়গা নাই।

স্বঘোষিত নাস্তিক আজ হল সাচ্চা ঈমানদার,
বাঘা কাদের সত্য বলায় হল নব্য রাজাকার।
মোম পুড়িয়ে, বেলুন উড়িয়ে করছি মোরা ঋণ শোধ,
সত্য কথা বললেই হবেন, “ছাগু, রাজাকার, নির্বোধ।”

বিস্তারিত

তিতুর তিক্ত কথা
তিতুর তিক্ত কথা avatar

তিতুমীর

তিতুমীর

তিতুমীর কৃষ্ণদেব রায়কে একখানা পত্র মারফত জানিয়ে দেন যে, তিনি কোন অন্যায় কাজ করেননি, মুসলমানদের মধ্যে ইসলাম প্রচারের কাজ করছেন। এ কাজে হস্তক্ষেপ করাতো কোন ক্রমেই ন্যায়সংগত হতে পারে না। নামায পড়া, রোযা রাখা, দাড়ি রাখা, গোঁফ ছাটা ইত্যাদি মুসলমানদের জন্য ধর্মীয় নির্দেশ। এ কাজে বাধা দান করাতো ধর্মের উপর বাধা দান করা।

তিতুমীরের জনৈক পত্রবাহক কৃষ্ণদেব রায়ের হাতে পত্রখানা দেয়ার পর কি প্রতিক্রিয়া হয়েছিল তাও পাঠক সমাজের জেনে রাখার প্রয়োজন আছে।– এখানে তা উল্লেখ করা হল

বিস্তারিত

শুকু কাহিনী
শুকু কাহিনী avatar

শুকুদের বাড়ি কোথা? কই থাকে শুকুরা?
রাতে থাকে শাহবাগে দিনে থাকে উত্তরা।
শুকু থাকে নীলক্ষেত শুকু থাকে বামে
কিছু থাকে লন্ডনে ইংরেজ নামে …

এর নামে তার নামে ঠকাঠকি করে
বেনিফিট নিয়ে পেটে মদ গাঁজা ভরে
শুকু ধরে ভেক তব ইহুদী ও নাসারার
রমাযান এলে শুধু নাম খানি সাজাবার
ইহুদী ও নাসারার পা চাটা মোসাহেব
শুকুরাই চিরদিন করে গেলো জী সাহেব!

শুকু থাকে আদালতে শুকু থাকে টিভিতে
শুকুদের উৎপাত উঠতে ও বসতে !
শুকুদের উৎকট গন্ধে যে চারিদিক
পাক থাকা মহা ভার, ছি ছি ধিক ধিক।

হালাল আর হারামের করে নাকো তোয়াক্কা
শুকু বলে পাপ নাই যদি থাকে লেবু মাখা
শুকু থাকে ফেইসবুকে, শুকু থাকে পর্ণে,
নানাবিধ চালে আর নানাবিধ বর্ণে !

বিস্তারিত

জনসংখ্যা বিষ্ফোরণ
জনসংখ্যা বিষ্ফোরণ avatar

Bangladeshi population(ট্র্যাফিক জ্যামে আটকে পড়া একটি বাসে………)

মুক্তমনাঃ শালার মানুষ আর মানুষ! মানুষে গিজগিজ করছে। এই হুজুরগুলা যত বদমাইশ! বলে যে মুখ দিবেন যিনি, আহার দিবেন তিনি। এখন বুঝো ঠ্যালা! বেকুব ধর্মান্ধগুলা একটার পর একটা পয়দা করে, আর দেশের যত সমস্যা!

মোল্লাঃ ভাই, আপনি বলতে চাচ্ছেন, জনসংখ্যা বেড়ে গেছে, এর জন্য ইসলাম দায়ী?

মুক্তমনাঃ তা নয়ত কি?

মোল্লাঃ কিন্তু……… আপনার কথা সত্য হলে ত আরবের লোকসংখ্যা পৃথিবীর সবচেয়ে বেশি হওয়ার কথা। কারণ ইসলাম ত প্রথম ঐদেশেই শুরু হয়েছে। অথচ দেখেন, বাংলাদেশের চেয়ে ১০ গুনের বেশি বড় হওয়া সত্ত্বেও, সউদি আরবের লোকসংখ্যা ৩ কোটিও নয়। অন্য আরবদেশগুলোর অবস্থাও তাই!

বিস্তারিত

দুই ভাগ করা পানি (প্রথম পর্ব)
দুই ভাগ করা পানি (প্রথম পর্ব) avatar

মুসলীমদের দুই ভাগ করার উৎসব চলছে। এই উৎসব নুতন নয় অতি পুরাতন এই উৎসব কালে কালে দেশে দেশে চলছে, চলবে। এটাই ষড়যন্ত্রকারীদের প্রতিশ্রুতি।এখনকার পৃথিবীতে মুসলীমদের দুই ভাগ করে রাখাই হল একমাত্র চ্যলেঞ্জ।বর্তমান পৃথিবীতে মুসলমাদের যত প্রকার চ্যলেঞ্জ মোকাবেলা করতে হচ্ছে তার মধ্যে এটাই হল অন্যতম প্রধান একটি চ্যলেঞ্জ।

One world

যদিও মুসলীমরা এক আল্লাহ আর রাসুল (স:) এর বিশ্বাসের ভিত্তিতে এক। মুসলীমদের দুই ভাগ করে রাখা সহজতর, কারন আমাদের ভিতরকার পাথর্ক্য আর চিন্তা চেতনাগত পার্থক্য। এই দূর্বলতা আর পার্থক্য ছোট স্থান কেন্দীক নয় বরং বিশ্বজনীন। যা লক্ষ্য করা আমাদের রাষ্ট্রপ্রধানদের মধ্যে, সমাজে, মুসলীম পন্ডিতদের মধ্যে এবং আমাদের মত সাধারন মানুষদের মধ্যে তো বটেই।
এই বিভক্তির মূলে যে বিষয় গুলি কাজ করে তা হলো:

বিস্তারিত

২য় মুক্তিযুদ্ধ, ১ম শহীদ ও কিছু ভাবনা
২য় মুক্তিযুদ্ধ, ১ম শহীদ ও কিছু ভাবনা avatar

মাননীয় প্রধান মন্ত্রীর কথা অনুযায়ী রাজীবের হত্যাকারিদের পুলিশ খুব আল্প সময়ের মদ্ধেই ধরতে সক্ষম হয়েছে, এটা অনেক আনন্দের বিষয়। হত্যাকারিদের বর্ণনাতে কিভাবে হত্যাকাণ্ড ঘটানো হয়েছে, কেনো ঘটানো হয়েছে সে বিষয় গুলো পরিষ্কার হয়ে গেছে। এখন হত্যাকারিদের বিচার হোক এটাই সবার কাম্য।

গিটুঁ লেগে গেছে অন্য জায়গায়। ভূগোল পরীক্ষার খাতায় পরীক…্ষক মার্ক বসিয়ে দিয়েছেন অংক পরীক্ষার। ছাত্র ভূগোলে পেয়েছে ৪২, অংকে পেয়েছে ৯২ কিন্তু শিক্ষক ভূগোলে দিয়েছেন A+  আর অংকে দিয়েছেন C । অনেকে বলতে পারেন A+ তো একটা আছেই সমস্যা কি তাতে। অনেক সমস্যা আছে, অংকে C নিয়ে প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হওয়া যাবে না। সারা জীবনের স্বপ্ন ধূলিসাৎ হয়ে যাবে।

বিস্তারিত

ফেইক আইডি
ফেইক আইডি avatar

ধর্মালম্বীরা ধর্মের আর আধুনিক সুশীল সমাজ মানবতার নামে করে যাচ্ছে এক আজব ব্যবসা, যার প্রফিট হয় কিভাবে আমার জানা নেই। আজ আমার দেশে ধর্মীয় দলের ব্যনারে চলে খুনাখুনি আর সুশীলের ব্যনারে দেয়া হয় পাপকে পুণ্য বলার সার্টিফিকেট। আজ অহিংস আন্দোলনের স্লোগান হয় “জ্বালো জ্বালো আগুন জ্বালো”, ইভ টিজিং এর আইন হয় কিন্তু ধর্ষণের বিচার হয় না।
মজার বিষয় হচ্ছে আজ এই দেশে আমার বন্ধুকে সংখ্যালঘু নাম দিয়ে আমার আর তার মধ্যে পার্থক্য বুঝিয়ে দেয়া হয়। যার ধর্ম তার কাছে, তাহলে কেন ধর্মের দোহাই দিয়ে সংখ্যা লঘু বলে তাকে হেয় করা হয়, আমি তো জানতাম আমরা সবাই বাংলাদেশী!!! তাহলে কি ভুল জানতাম?
আজ সুশীল নামে বিভিন্ন সমাজ ও সংগঠন দেখা যায়, তাহলে বাকি সবাই কি কুশীল?

বিস্তারিত

রাষ্ট্র ধর্ম ইসলাম
রাষ্ট্র ধর্ম ইসলাম avatar

১- বাংলাদেশে ধর্মনিরপেক্ষতা নামে মাত্র থাকবে । অনেকেই মনে করেন রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম বাদ দিলেই বাংলাদেশের সব মুসলমান আর কখনো মালাউন গালিটা উচ্চারন করবে না । তাদের বলি ভারতের দিকে তাকান । বিশ্বের সবচে বড়ো গনতন্ত্র আর ধর্ম নিরপেক্ষদেশ । যেখানে হাজারে হাজারে মুসলমান দাংগায় কচুকাটা হয় । বাংলাদেশে কি সেই আকারে কোন দাঙ্গা হয়েছে ৭১ এর পরে ? বাংলাদেশ সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির দেশ না এই কথা অনেকে প্রচার করে মজা পায় ।

অনেকে মজা পায় আমেরিকা গিয়ে আমাদের দেশে গণতন্ত্র আনার চেষ্টা করে, অনেকে মজা পায় আমাদের দেশেকে টেরোরিষ্ট রাষ্ট্র প্রমান করে, অনেকে আমাদের দেশটা গরীব আর দুর্যোগ দেশ বলে প্রচার করে মজা পায়।

বিস্তারিত

শাহবাগে গেস? ও যাওনাই তুমি রাজাকার
শাহবাগে গেস? ও যাওনাই তুমি রাজাকার avatar

বিভিন্ন সময়ে শাহবাগ আন্দোলন যারা সমর্থন করেছেন তারা; যারা সমর্থন করেন নাই বা বিরোধীতা করেন নাই তাদের গালি দিয়েছেন। নিজেদের মহা জ্ঞাণী আর মুক্তিযোদ্ধা ভাবা শূরু করেছেন। মিডিয়ার হলদামীর কারনে েঅনেকের চোখে যে পর্দা পরেছে তা আর খোলাসা হয় নাই। ভাব খানা এমন যে শাহবাগে সহমত দিতেই হবে না হলে তুই রাজাকা/ছাগু ইত্যাদি। এতটা বারাবারি করে শেষ পর্যন্ত দেখা যায় এটা আওযামী লীগের দলিয় কর্মকান্ড আর তারাই শহিদ মিনার ভাঙ্গছে বা বিভিন্ন নাশকতায় জড়িত।আমি জানি এখানেও শাহবাগী কেউ খুব বড় গলায় যুক্তি উপস্থাপন করে বলবেন মাহি রাজাকার বা আমি অধম রাজাকর/ছাগু। আপনার জন্য বলে রাখি নেরি কুত্তামির স্বাভাব ছেড়ে সঠিক আর আসল কথা বলুন। আপনাদের মিডিয়া এত কভারেজ দেওয়ার পরও আসল খবর এখন দেশবাসী জেনে গেছে।

বিস্তারিত

আমি হতে চাই
আমি হতে চাই avatar

আমি হতে চাই অসীম বক্ররেখা
যাযাবর হয়ে যখন যা খুশি দেখা।
আমি হতে চাই আকাশের বুকে ডানা মেলা এক পাখি
উড়ব আমি, দেখব সবই, রাখব না কিছু বাকি।

আমি হতে চাই অসীম শান্ত সিন্ধু
বুকে ধরে রেখে লক্ষ-কোটি নীর বিন্দু।
আরো হতে চাই সুউচ্চ হিমালয়
যেখানে হবে শুধু ভয়হীনদের জয়।

আমি হতে চাই অরুণ রাঙা দিনেশ
করে দিতে চাই সকল অন্ধকারের শেষ।
হতে চাই আমি ধরিত্রীর মত উদার
দিয়ে দিতে চাই সবকিছু মোর, মন-প্রাণ করে উজাড়।

আমি হতে চাই অসীম সুনীল আকাশ
যাতে রবে সহস্র-কোটি ধরণীর নিবাস।
আমি হতে চাই আকাশের বুকে সুপ্রভ এক তারা
শুধু দেখবে আমায়, যাবে না কখন ধরা।

বিস্তারিত

থাবা বাবা ও তার ইন্টারনেট
থাবা বাবা ও তার ইন্টারনেট avatar

থাবা বাবা ওরফে রাজীব মারা যাওার আগে বলে গেছিলো, যেদিন দুনিয়াতে ইন্টারনেট এসেছে সেদিন আল্লাহতালার ডেথ হইয়াছে।

393611_10151409901215830_54916643_n

আফসোস রাজীবের জন্য, হয়তো সে তার চোখ বন্ধ করে রেখেছিলো নাহয় তার আশে পাশের লোকজন তাকে দেখতে দেয়নি কিভাবে মানুষ ইসলামের জ্ঞান অর্জনের জন্য, আল্লাহ্‌ সম্পর্কে জানার জন্য ইন্টারনেট কে ব্যবহার করছে।

২০১০ সালে বনমাউথ (ইংল্যান্ড) এর একটা ১৬ বছরের ছেলের সাথে পরিচয় হয়েছিল নাম এহসান, আমরা তিনদিন একসাথে ছিলাম জামাতে। ছেলেটা তিন মাস আগে ইসলাম গ্রহন করেছে, মজার বিষয় হলো তাকে কেউ ইসলামের দাওয়াত দেয়নি, সে যে এলাকায় থাকে সেখানে একটা বাঙ্গালী রেস্টুরেন্ট আছে, মুসলিম মানে তার কাছে সেই রেস্টুরেন্ট এর কর্মচারী যারা সেখানে এলকহল ও বিক্রি করে। সেই এলাকায় তার কাছে ইসলাম পৌছে গিয়েছিলো ইন্টারনেট এর মাধ্যমে, রাজীব জেনে যেতে পারলোনা।

বিস্তারিত

মোরা ভোরের বেলায় ফুল তুলেছি…
মোরা ভোরের বেলায় ফুল তুলেছি… avatar

আমরা খুবই শান্ত আর আনন্দদায়ক একটা পরিবেশে বড় হয়েছি। হিন্দু/খ্রিস্টান/বৌদ্ধ আর মুসলমান এক সাথে পড়াশোনা করেছি, খেলেছি, বেড়িয়েছি। কখনও কারও মনে কোন খাদ ছিল বলে মনে হয় না। অন্তত আমার মনে হয় নাই।

এখন কে এমন বিষ ঢেলে দিল, কে চায় আমাদের ধ্বংশ করতে?

আমার হিন্দু সহপাঠী এখন আর কথা বলে না; খ্রিস্টান সহপাঠী এখন আর কথা বলে না। আমরা কি আর সহবস্থান করতে পারব না? স্কুলে আমার সহপাঠীদের মধ্যে বেশ কয়েকজন হিন্দু সহপাঠী ছিল আর একজন ছিল খ্রিস্টান সহপাঠী।

শিউলি ফুল

শিউলি ফুল

আমি যখন চতুর্থ শ্রেণীর ছাত্র তখন আমার স্কুলে খ্রিস্টান এক ছেলে ভর্তি হল, সে সময় সে ছিল তখন আমার সবেচেয়ে প্রিয়। আমরা একসাথে একই স্কুল থেকে এস এস সি পাশ করি। আমরা যখন প্রাইমারী স্কুলের ছাত্র তখন ভোরে (ফজরের সময়) দৌড়াতে বের হতাম যাকে বলে জগিং। জগিং শেষে আমরা শিউলি ফুল কুড়াতাম। আমি ওর বাসায় যেতাম মাঝে মধ্যে ও আসত আমাদের বাসায়। ৬ষ্ঠ শ্রেনী থেকে বেশ কিছু হিন্দু ছেলে আসে আমাদের শ্রেণীতে। কয়েক জনের নাম না বললেই নয়; লিটন দাস, শিপলু প্রমুখ। হিন্দুদের মধ্যে লিটন ছিল আমাদের ‘ক’ সেকশনে আর ওর সাথে ছিল আমার খুব অন্তরঙ্গ সম্পর্ক। ঠিক যেমন ছিল খ্রিস্টান সহপাঠীর সাথে।

বিস্তারিত

বাংলাদেশে বাস্তবেই মানবাধিকার লঙ্ঘিত হচ্ছে: রুশনারা
বাংলাদেশে বাস্তবেই মানবাধিকার লঙ্ঘিত হচ্ছে: রুশনারা avatar

বাংলাদেশে বাস্তবেই মানবাধিকার লঙ্ঘিত হচ্ছে। নিহত ও আহতের সংখ্যা উদ্বেগজনকভাবে বেড়ে যাচ্ছে। এ কথা বলেছেন সিলেটের বিশ্বনাথে জন্মগ্রহণকারী বৃটিশ এমপি রুশনারা আলী। এ উদ্বেগ প্রকাশ করে তিনি পরিস্থিতি শান্ত করতে বাংলাদেশ সরকার ও বিরোধীদলীয় নেতাদের চাপ দিতে আহ্বান জানিয়েছেন বৃটিশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী উইলিয়াম হেগকে। তার সঙ্গে যোগ দিয়েছেন টাওয়ার হ্যামলেটসের সাবেক অলিম্পিক এম্বাসেডর ওয়েছ ইসলাম। তারা দু’জনেই
বাংলাদেশ পরিস্থিতিতে বৃটেনকে পদক্ষেপ নেয়ার আহ্বান জানিয়েছেন। রুশনারা আলী বর্তমানে বেথনাল গ্রিন অ্যান্ড বো-র এমপি। গতকাল অনলাইন ইস্ট লন্ডন এডভাইজার এ খবর দিয়েছে। এতে বলা হয়, রুশনারা আলী পররাষ্ট্রমন্ত্রী উইলিয়াম হেগের কাছে আহ্বান জানিয়েছেন, তিনি যেন বাংলাদেশ সরকার ও বিরোধীদলীয় নেতাদের সহিংসতা বন্ধের জন্য চাপ দেন। এমপিদের কাছে রুশনারা বলেন, বাংলাদেশে বাস্তবেই মানবাধিকার লঙ্ঘিত হচ্ছে। নিহত ও আহতের সংখ্যা উদ্বেগজনক হারে বাড়ছে। ওদিকে অলিম্পিকের সাবেক এম্বাসেডর ওয়েছ ইসলাম রাজনীতিবিদদের কাছে আহ্বান জানিয়েছেন বাংলাদেশে যুদ্ধাপরাধ আদালত যে মৃত্যুদণ্ড ঘোষণা করেছে তার বিরুদ্ধে প্রকাশ্যে নিন্দা জানাতে। তিনি দাবি করেন, ওই আদালতে ঘাটতি রয়েছে আন্তর্জাতিক মানদণ্ড ও মানবাধিকার আইনের। তিনি বলেন, লন্ডনের ইস্ট এন্ডে বসবাসকারী বেশির ভাগ বাংলাদেশী যুদ্ধাপরাধের ন্যায়বিচার চাইলেও মৃত্যুদণ্ডের বিরোধী। ওই রিপোর্টে আরও বলা হয়, ১৯৭১ সালে স্বাধীনতা যুদ্ধের সময় সংঘটিত যুদ্ধাপরাধের বিচার চলছে বাংলাদেশের ওই আদালতে। কিন্তু পূর্ব লন্ডনের ক্যাম্পেইনাররা বলেন, ঢাকায় যে ‘ত্রুটিপূর্ণ’ আদালত স্থাপন করা হয়েছে তার স্বীকৃতি দেয় নি জাতিসংঘ।

বিস্তারিত

ঘুম ভেঙেছে মিডিয়ার
ঘুম ভেঙেছে মিডিয়ার avatar

মিশ্র প্রতিক্রিয়াঅমিত রহমান, অতিথি প্রতিবেদক: ঘুম ভেঙেছে মিডিয়ার। তারা এখন বলছে, অনেক হয়েছে। আর নয়। আলোচনায় বসুন রাজনীতিকরা। এতদিন এই মিডিয়া উস্কে দিয়েছে সব কিছু। ঘটনার এক পিঠ দেখেছে। অন্য পিঠে কি আছে তা একবারও তলিয়ে দেখার চেষ্টা করেনি। অভিযোগ সামপ্রদায়িক দাঙ্গা বাধানোর চেষ্টাতেও রসদ দিতে চেয়েছিল কতিপয় মিডিয়া।

দু’সপ্তাহ আগে কলকাতার আশপাশে দাঙ্গা হয়েছিল। একজন পেশ ইমাম খুনের ঘটনার পর। বিবিসি এ খবর দিয়েছিল। আগ্রহবশত অনলাইনে পরদিন খবরটি কলকাতার পত্রপত্রিকায় খুঁজলাম। একটি হরফও পেলাম না। অথচ ঢাকার মূলধারার গণমাধ্যম যেসব খবর প্রচার করেছে তাতে আতঙ্কিত না হয়ে পারা যায় না। রাজনৈতিক ফায়দা তোলার জন্য এসব মিডিয়া একপেশে খবর ছেপেছে। যাতে বাংলাদেশ সম্পর্কে ভিন্ন বার্তা গেছে আধুনিক দুনিয়ায়। বাংলাদেশের মানুষ সামপ্রদায়িক নয়। তারা রাজনীতি নিয়ে লড়াই করতে পারে। বেছে নিতে পারে হিংসার পথ। কিন্তু কখনও সামপ্রদায়িকতাকে প্রশ্রয় দেয়নি। বরং জান দিয়ে রুখে দিয়েছে। এখনও তা করবে। জামায়াতে ইসলামী পত্রিকায় বিজ্ঞাপন দিয়ে বলেছে তারা মন্দির কিংবা হিন্দু সমপ্রদায়ের বাড়িতে আগুন দেয়ার সঙ্গে জড়িত নয়। বিরোধী নেত্রী বেগম জিয়াও বিবৃতি দিয়ে নিন্দা করেছেন। তদন্ত দাবি করেছেন। সরকার এ নিয়ে রাজনীতি করছে। পররাষ্ট্রমন্ত্রী দীপু মনি আরেক ধাপ এগিয়ে। তিনি বর্তমান অবস্থাকে ১৯৭১ সালের সঙ্গে তুলনা করছেন। বাস্তব অবস্থা কি তাই! দেশের বেশির ভাগ না হলেও অর্ধেক মানুষ কি এই জঘন্য খেলায় মাততে পারে! রাজনৈতিক বিরোধিতার মানে কি স্বাধীনতার বিরোধিতা। দেশে দেশে এমন ঘটনা ঘটছে। কিন্তু সেসব দেশের শাসকদেরকে বলতে শোনা যায় না এরা রুয়ান্ডা, সিরিয়া, মিশর কিংবা তিউনিসিয়ার স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্বের বিরোধী। এখন রাজনীতির সময় নয়। সংখ্যালঘুদেরকে যে কোন হিংস্র হামলা থেকে বাঁচাতে হবে। খুঁজে বের করতে হবে কারা এই হামলা করছে। পরিস্থিতি ঘোলাটে হচ্ছে প্রতিনিয়ত। এখন মিডিয়াকে দায়িত্বশীল ভূমিকা পালন করতে হবে। আসল সত্যটা প্রচার বা লিখতে হবে। একটি ইংরেজি দৈনিকের সম্পাদকীয় দেখে কিছুটা আশ্বস্ত হলাম। এতে বলা হয়েছে জরুরি ভিত্তিতে সংলাপে বসতে হবে। বলেছে, সমস্যাটি রাজনৈতিক। তাই শক্তি প্রয়োগ না করে রাজনৈতিকভাবে মোকাবিলা করতে হবে। আরেকটি প্রভাবশালী বাংলা দৈনিকের সম্পাদকীয়তেও একই ভাষা ব্যবহার করা হয়েছে। বলা হয়েছে, মনে রাখতে হবে সমস্যাটি নিছক আইনশৃঙ্খলাজনিত নয়। রাজনৈতিক সমস্যা সবাইকে সঙ্গে নিয়েই সামাল দিতে হবে। ইলেকট্রনিক মিডিয়াকে এ ধরনের খবর প্রচারে বেশি সতর্ক থাকা জরুরি। কারণ, এখন একটি খবর আমাদের সব অর্জন ওলট-পালট করে দিতে পারে। বিপন্ন হতে পারে গণতন্ত্র। ঝুঁকিতে পড়তে পারে স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্ব।

বিস্তারিত

শাহবাগ স্কয়ার এবং ৪২ বছর!!!
শাহবাগ স্কয়ার এবং ৪২ বছর!!! avatar

৪২ বছর পর এক রাজাকারের ফাসি নিয়ে আমার হৈচৈ, ফাসি হলে আমি কি পাব??? সাগর-রুনি হরিয়ে গেছে, পদ্মা সেতুর আসামী জামিনে মুক্তি পেল, দেশের অর্থনীতি ধ্বংসের পথে, নিত্য পণ্যের দাম উর্ধ্বমুখি আর নাগালের বাইরে, মানুষ গুম, প্রতিদিন নিয়মিত একটার পর একটা ধর্ষণ আর খুন আরো কত কি… আর আমরা সবাই চুপ! কারন, আমরা এইসবের বিচার চাইব আজ থেকে ৪২ বছর পর! শত হলেও আমাদের মধ্যে রয়েছে ৭১ এর মুক্তি যুদ্ধের চেতনা, আর এই চেতনা অনুযায়ী আমরা সব কিছুর বিচার ৪২ বছর পর চাইব।

Sagar Runi

সাগর ও রুনির মৃত দেহ।

বিস্তারিত

পুঞ্জ কথা : নিরীশ্বরবাদ (প্রথম পর্ব)
পুঞ্জ কথা : নিরীশ্বরবাদ (প্রথম পর্ব) avatar

ধর্ম কি?

According the Oxford dictionary: the belief in and worship of a superhuman controlling power, especially a personal God or gods.

সংক্ষেপে: ধর্ম হল এমন কোন অস্তিত্বে বিশ্বাস করে তার উপাষনা করা যে সব কিছু নিয়ন্ত্রন করতে ক্ষমতা রাখে বা আছে।

সৃষ্টি কুলে বেশীর ভাগ মানুষ বিশ্বাস করে কোন এক অসীম শক্তি তাদের সৃষ্টি করেছে, সেই অসীশ শক্তি সকল ভালো মন্দের নিয়ন্ত্রক। যেহেতু সেই শক্তি সকল ভালো মন্দের নিয়ন্ত্রক তাই তাঁর প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করা আর তার প্রতি সম্মান প্রদর্শন করা সৃষ্টিকর্তা বিশ্বাসিদের একটা প্রচলিত নিয়ম বা রিতি। এই নিয়মের মধ্যে ভিন্নতা লক্ষ্য করা যায়।  Continue reading

বিস্তারিত