ক্যান্ডিডেট (Candy+Date)
ক্যান্ডিডেট (Candy+Date) avatar

world+muslimah+মুসরিমা+সুন্দরীপৃথিবীতে অনেক ব্যভিচারিণী আছে যে আরাবি লিখতে ও পড়তে জানে, কোরান তিলাওয়াত করতে বললে সে’ও সুন্দর করে তিলাওয়াত করতে পারবে। তাই বলে তাকে আদর্শ মুসলিমাহ বলা যাবে না বা সে কখনই সত্যিকারের মুসলমান নয় যতক্ষণ না তওবাহ করে জিনা/ব্যভিচার থেকে নিজেকে বিরত রাখছে।

আবার পৃথিবীতে এক শ্রেনীর পুরুষ/মেয়ে আছে যারা কিছু বলার আগেই অল্প বসনে ক্যামেরার সামনে দাড়িয়ে পোজ দেয়া শুরু করবে, আরও কয়েক ধাপ এগিয়ে গেলেই দেখতে পারব অন্য আরেক ধরণের নারী বা পুরুষ যারা অর্থের বিনিময়ে জিনা করার দৃশ্য (দেহ বানিজ্য) চিত্র ধারণ করে জীবিকা নির্বাহ করে।

বিস্তারিত

ব্র্যাক ইউনিভারসিটি ও নিকাব শো-কোজ
ব্র্যাক ইউনিভারসিটি ও নিকাব শো-কোজ avatar

একটা কথা আগে প্রায়ই শোনা যেত, দ্বীনের দাওয়াত তো নন-মুসলিমদের জন্য। তোমরা মুসলমানদেরকে দাওয়াত দাও কেন? এই কথাটা এখন আর শোনা যায় না, বাংলাদেশের মুসলমানেরা এখন এই প্রশ্নের উত্তর পেয়ে গেছে।

ব্র্যাক ইউনি তাদের ক্যাম্পাসে নিকাব ব্যান করেছে এই খবরে প্রাকটিসিং মুসলমানদের মাথায় আকাশ ভেঙ্গে পরেছে। হেফাজতে ইসলাম যদি কনো ভাবে দেশে শরীয়া আইন কায়েম করে ফেলে তাহলে তো ব্র্যাক ইউনি তাদের ক্যাম্পাসে মেয়েদেরকে ব্যান করে দেবে তখন আমাদের মাথায় কি পড়বে ভেবে কুল পাইনা।
nikab
ব্র্যাক ইউনি শুধু হাফসা ইসলামকে শো-কোজ করেছে তার মানে হচ্ছে এই ইউনিতে শুধু সে একাই নিকাব পড়ে। বাকিরা, যারা নিকাব পড়ে না তারা কি আল্লাহর দ্বীন প্রতিষ্ঠার জন্য এই ইউনি বর্জন করবে? আমার তো মনে হয় না তারা তাদের সহপাঠীর জন্য দুই একটা ক্লাস বর্জন করবে। ক্লাস বর্জনের চিন্তা বাদ দিলাম, ব্র্যাক ইউনি যদি বলে তারা নিকাবের পক্ষে বিপক্ষে ভোট গ্রহণ করবে, নারী নির্যাতন আর মাদক প্রতিরোধে যে বিশ্ববিদ্যালয় গুলাতে কমিটি গঠন করা লাগে, আমার তো মনে হয়না তারা নিকাবের পক্ষে ভোট দিবে বলে। তাহলে কেন আমরা ব্র্যাক ইউনির প্রশাসন কে দোষারোপ করছি?

বিস্তারিত

মূর্খ আবেল/তাবেল
মূর্খ আবেল/তাবেল avatar

BRAC_U_logoএকজন মেয়ের সাধারণ ফ্যাশন চিন্তা হল; সে কতটুকু নিজেকে সুন্দরী করে প্রকাশ করতে পারে আর কত বেশী পুরুষের দৃষ্টিতে আকর্ষণীয় হতে পারে। নিজেকে আকর্ষণীয় করে তোলার প্রতিযোগিতায় বাংলাদেশের মুসলিম সমাজের মেয়েরা গত মাত্র ২০ বছরে এক লাফে কলকাতার হিন্দু সমাজের মেয়েদের ছাড়িয়ে গেছে। বাংলাদেশের একটি পণ্যের টিভি বিজ্ঞাপণের বক্তব্য হল ‘যখন লুকানোর কিছুই নেই তখন সব দেখিয়ে দিতে হবে।‘

এই দেখিয়ে দেয়ার দৌড়ে বাংলাদেশের মেয়েরা এখন চার পাতা এগিয়ে আছে। দেখানোর ব্যপারটা আগে ছিল খুবই সামান্য হয়ত খুব বাড়াবাড়ি হলে একজন মেয়ে মাথায় কাপড় ছাড়া বের হত। ২০ বছরেরও কম সময়ে সেই একই দেশের, একই সমাজের দৃশ্য এখন ভিন্ন। মেয়েরা এখন সব কিছুই খুলে দেখাচ্ছে।

বিস্তারিত

কুশিক্ষার কারিগর ব্র্যক ইউনিভার্সিটি
কুশিক্ষার কারিগর ব্র্যক ইউনিভার্সিটি avatar

নামে গণতন্ত্র কিন্তু কাজে স্বৈরাচারীতা আজ উপর থেকে নিচ পর্যন্ত সব জায়গায়… শেষ পর্যন্ত একটি নামকরা প্রাইভেট ইউনিভার্সিটিতেও? সম্প্রতি ব্র্যাক ইউনিভর্সিটির নিম্নোক্ত পোষ্টের স্বৈরাচারীতা দেখে খুব বিস্মিত হলাম। একটি প্রাইভেট ইউনিভার্সিটি ইচ্ছা করলেই পারে নিজের মত করে নিয়ম বানাতে, কিন্তু তা সবার জন্য হবে কেন? নতুন নিয়ম হবে নতুন ভর্তি হওয়া ছাত্র-ছাত্রীর জন্য। কিন্তু যারা নতুন নিয়মের আগে ভর্তি হয়েছে তাদের জন্য কেন? হঠাৎ করেই ৭ম সেমিষ্টারে পড়ারত কারো উপর নতুর কোন কিছু চাপিয়ে দেওয়া মোটেই গ্রহন যোগ্য নয়। এটা সম্পূর্ণরূপে স্বৈরাচারীতা। শিক্ষা যেমন জাতির মেরুদণ্ড, তেমনি একটি বিশ্ববিদ্যালয় হচ্ছে সেই মেরুদণ্ড তৈরির স্থান। আজকের ছাত্র-ছাত্রীরা জাতির ভবিষ্যত কর্ণধার, আর সেই ছাত্র-ছাত্রীরা যদি কোন বিশ্ববিদ্যালয় থেকে কুশিক্ষা গ্রহন করে, তাহলে এই বাংলাদেশ চিরদিন অন্ধকারেই রয়ে যাবে। ব্র্যাক ইউনিভার্সিটির মত একটি স্বনামধন্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে যদি এইরূপের কুশিক্ষার নজির স্থাপন করা হয়, তাহলে আমি বলব বাংলাদেশে কুশিক্ষার চেয়ে অশিক্ষিত খাকা ভালো। ধিক্কার জানাই এই প্রতিষ্ঠানকে, যে প্রতিষ্ঠান নিজেই অশিক্ষিত…

বিস্তারিত